সিসি ক্যামেরাঃ কম দামে কিভাবে কিনবেন?

সিসিটিভি ক্যামেরা

বাসা-বাড়ি, স্কুল-কলেজ কিংবা অফিসের নিরাপত্তার জন্য কমদামে সিসিটিভি ক্যামেরা কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আমরা সকলেই জানি। সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে আপনার অবর্তমানে কি হচ্ছে তা সবই জানতে পারবেন।

সিসিটিভি কেনার আগে বিভিন্ন বিষয় ভালোভাবে চিন্তা ভাবনা ও বিচার বিশ্লেষণ করতে হবে। একসময় সিসিটিভি ক্যামেরার দাম ছিলো অনেক, তবে বর্তমানে দাম হাতের নাগালে এসে পড়েছে।

ক্যামেরা কেনার আগে আপনার চাহিদা কেমন তা জানতে হবে। চাহিদা জানা থাকলে খুব সহজে ক্যামেরা কেনার সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন এবং ভালো ক্যামেরা কিনতে পারবেন। তাই আপনাকে সিসিটিভি ক্যামেরা সম্পর্কে যথেষ্ট তথ্য জানতে হবে।

কিভাবে সিসিটিভি ক্যামেরা কাজ করে

বাসা-বাড়ি, স্কুল-কলেজ কিংবা অফিসের নিরাপত্তার জন্য ব্যবহৃত বেশিরভাগ সিসিটিভি ক্যামেরাই হচ্ছে সলিড স্টেট ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস। এটি একটি সেন্ট্রাল রেকর্ডারের সাথে সংযুক্ত থাকে।

সিসিটিভি ক্যামেরাতে লেন্স, সেন্সর ও ডিএসপি বা ডিজিটাল সিগন্যাল প্রসেসর থাকে। লেন্সে লাইটের ফোকাস করা থাকে, যার সেন্সর ইমেজ হিসেবে ধারণ করে। এরপর সেন্সর থেকে ডিএসপিতে স্থানান্তরিত করা হয়।

ডিজিটাল সিগন্যাল প্রসেসর ওই ইমেজকে টিভি সিগন্যালে রুপান্তরিত করে। এরপর তা তার বা বেতারের মাধ্যমে সিগন্যালটি পরিদর্শনের জন্য প্রেরিত হয় এবং আমরা তা দেখতে পারি।

সিসিটিভি ক্যামেরা কেনার আগে যা দেখবেন

সিসিটিভি ক্যামেরা কেনার আগে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মাথায় রাখতে হবে, তা হলোঃ

লেন্স নির্বাচনঃ ক্যামেরার সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে লেন্স। লেন্সের প্রধান কাজ হচ্ছে সেন্সরের জন্য আলো সংগ্রহ করা। ক্যামেরার মাধ্যমে আমরা যা কিছু দেখতে পাই তা লেন্সের মাধ্যমে ধারণ করা হয়।

লেন্স হচ্ছে ইনপুট সিস্টেম। আমরা যা কিছু দেখতে পাই তাই হলো আউটপুট। লেন্স ভালো হলে আউটপুট ভালো হবে। বর্তমানে বাজারে জুম লেন্সও পাওয়া যাচ্ছে। কিছু কিছু সিসিটিভি ক্যামেরাতে ডিজিটাল লেন্স এবং বাকিগুলোতে অপটিক্যাল জুম লেন্স আছে।

সিসিটিভি ক্যামেরার জন্য সব থেকে ভালো লেন্স হলো অপটিক্যাল জুম লেন্স। কারণ ডিজিটাল জুমের মূল সমস্যা হচ্ছে এটি মূল ইমেজের সাথে কোনো তত্ত্ব যোগ করতে পারে না। কিন্তু অপটিক্যাল জুম নতুন তত্ত্ব যোগ করতে আপ্রে এবং লাইট সেন্সরে পৌঁছানোর সাথে সাথে ইমেজ পরিবর্তিত হয়।

সেন্সর নির্বাচনঃ সিসিটিভি ক্যামেরার জন্য দুটি জিনিস বিবেচনা করা উচিত, তা হলো সেন্সর টাইপ ও সেন্সর সাইজ। এই সেন্সরগুলো সিএমওএস এবং সিসিডি সেন্সর।

সিএমওএস সেন্সরের কর্মক্ষমতা ও সংবেদনশীলতা সিসিডি সেন্সরের থেকে অপেক্ষাকৃত কম। যার ফলে এটি পরিষ্কার ভিডিও ধারণ করতে পারেনা। পরিষ্কার ভিডিও ধারণ করার জন্য সিএমওএস সেন্সরে বেশি সিগন্যালের প্রযোজন হয়। পরিচয় শনাক্ত করার জন্য সিএমওএস সেন্সর ব্যবহার করা উচিত নয়। তবে সিএমওএস সেন্সরের দাম সিসিডি থেকে কম।

এখন আসা যাক সেন্সরের সাইজ প্রসঙ্গে। সেন্সরের সাইজের উপর অনেক কিছু নির্ভর করে, যেমন- সেন্সরের সাইজ যত বড় হবে ততবেশি লাইট সেন্সরে প্রবেশ করতে পারবে এবং ভালো মানের ভিডিও ধারণ করা যাবে। বড় সেন্সর ব্যবহার করলে ডিএসপি কাজ করার জন্য অতিরিক্ত তথ্য পেয়ে থাকে। এর ফলে কম ক্ষমতাসম্পন্ন বাজেট ক্যামেরার জন্য এটি অনেক ভালো হয়।

বেশিরভাগ সেন্সরই দুই সাইজের হয়ে থাকে, তা হলোঃ

  • ১/৪ ইঞ্চি সেন্সর
  • ১/৩ ইঞ্চি সেন্সর

ক্রেতার জন্য ১/৩ ইঞ্চি সিসিডি ক্যামেরা সেন্সরের সিসিডি সেন্সর ক্রয় করা উচিত। কারণ এটি অধিকাংশ তথ্য প্রসেসিং এর জন্য ডিএসপিতে প্রেরণ করে থাকে।

আউটপুট রেজুলেশনঃ সিসিটিভি ক্যামেরার টিভিএল ৭০০ পর্যন্ত হয়ে থাকে। বাজারে ৩৮০ টিভিএল ও ৫৪০ টিভিএলের বিভিন্ন ধরণের ক্যামেরা পাওয়া যায়। তবে বিশেষজ্ঞরা ৪২০ টিভিএলকে সর্বনিম্ন ধরলেও তা সবক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়।

ইনপুটের উপর আউটপুট নির্ভর করে। তাই লেন্স ও সেন্সরের সাথে আউটপুট রেজুলেশন মিল থাকতে হবে। যদি মিল না থাকে তাহলে অতিরিক্ত রেজুলেশন পুরোটাই বৃথা যাবে। তাই যথেষ্ট পরিমাণে রেজুলেশন নিশ্চিত করা, এর ফলে আমরা সিসিটিভি ক্যামেরা থেকে পরিষ্কার ভিডিও দেখতে পারবো।

সিসিটিভি ক্যামেরার ধরণ

বর্তমানে বাজারে বিভিন্ন ধরণের সিসিটিভি ক্যামেরা রয়েছে। সব সিসিটিভি ক্যামেরার গঠন এক রকম হয়ে থাকে না। চলুন জেনে নেওয়া যাক কিছু সিসিটিভি ক্যামেরা সম্পর্কে।

ডোম ক্যামেরাঃ নিরাপত্তার জন্য ডোম ক্যামেরা অসাধারণ। এই ক্যামেরাটির মূল বিশেষত্ব হচ্ছে এটি কোন দিকে পয়েন্ট করে আছে তা বোঝা প্রায় অসম্ভব।

বুলেট ক্যামেরাঃ ছোট নলাকার আকৃতির ক্যামেরাগুলো সাধারণত এমন অবস্থায় ব্যবহার করা হয় যেখানে বিচক্ষণতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি স্থায়ীভাবে ইন্সটল করার প্রয়োজন হয় না।

আইআর ক্যামেরাঃ এটি একটি ডে/নাইট ক্যামেরা। এই ক্যামেরাগুলো কভারেজ দিয়ে থাকে। রাত-দিন যাই হোক না কেন এই ক্যামেরা সকল ফুটেজ ধারণ করে থাকে।

এই ক্যামেরাটি দিনের বেলায় স্বাভাবিক কালারের ভিডিও দিয়ে থাকে আর রাতে সাদা-কালো ভিডিও প্রদান করে থাকে। এটি দিয়ে এভাবেই সারাদিন কভারেজ করা যায় এবং এই ক্যামেরা অনেক জনপ্রিয়।

সিসিটিভি ক্যামেরা নির্বাচন

সঠিক ক্যামেরা ক্রয়ের জন্য উপরের সকল বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে এবং বাজেট অনুযায়ী সঠিক ক্যামেরা নির্বাচন করতে হবে। বাসা-বাড়ি, স্কুল-কলেজ, অফিস কিংবা আউটডোর এরিয়া কভার করার জন্য আইআর ডে/নাইট ক্যামেরা ব্যবহার করা উচিত। শুধুমাত্র কর্মীদের উপর নজরদারি করার জন্য বুলেট ক্যামেরা ব্যবহার করতে পারেন। দোকান বা ব্যবসায়ের জন্য ডোম ক্যামেরা ব্যবহার করা ভালো।

সিসিটিভি ক্যামেরার দাম

বাজারে বিভিন্ন ধরণের ক্যামেরা রয়েছে। স্পেসিফিকেশনের উপর ভিত্তি করে ক্যামেরার দামও বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। এর দাম সাধারণত ক্যামেরার কোয়ালিটি, প্রোভাইডার ও আনুষঙ্গিক বিভিন্ন বিষয়ের উপর নির্ভর করে নির্ধারণ করা হয়। সিসিটিভি ক্যামেরার সর্বশেষ দাম জানতে এবং কেনার জন্য এখানে ক্লিক করুন

গুগলে Best CCTV Camera in Bangladesh লিখে সার্চ করে কয়েকটি ওয়েবসাইট দেখে নিন তাহলে দাম সম্পর্কে মোটামোটি ধারণা পেয়ে যাবেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।